30 টি মেয়েদের কষ্টের স্ট্যাটাস ক্যাপশন সেরা উক্তি

মেয়েদের কষ্টের স্ট্যাটাস: মেয়েদের জীবন অনেক কষ্টের। কিন্তু হাজারো কষ্টের মাঝেও মেয়েদেরকে হাসি মুখে থাকতে হয়। এখানে কিছু মেয়েদের কষ্টের স্ট্যাটাস তুলে ধরা হলো। আশাকরি এই সমস্ত স্ট্যাটাস গুলি আপনাদের ভালো লাগবে।

তাহলে চলুন আর দেরী না করে, মেয়েদের কষ্টের স্ট্যাটাস গুলি পড়ে নেওয়া যাক।

মেয়েদের কষ্টের স্ট্যাটাস

1. মেয়েদের জীবন বড়ই অদ্ভুত! মেনে নিতে নিতে আর মানিয়ে নিতে নিতে মেয়েদের জীবন শেষ।

2. মেয়েদের চোখে যতো সহজে বৃষ্টি নামে,, ছেলেদের আকাশে তত সহজে মেঘ জমাও নিষেধ!

3. একটা মেয়েই পারে, বুকের মধ্যে হাজার কষ্ট লুকিয়ে রেখে সবার সামনে হাসি মুখে থাকতে।

ফেসবুক-স্ট্যাটাস

4. একটা মেয়ের জীবন নষ্ট করার জন্য একটা ছেলের মিথ্যা ভালোবাসাই যথেষ্ট!

5. একটা মেয়ে সমাজের কাছে ততক্ষণ ভালো থাকে, যতক্ষণ সে চুপ করে মুখ বুজে সব সহ্য করে..!!

কষ্টের-স্ট্যাটাস

আরও পড়ুন- 50 টি সেরা ইমোশনাল উক্তি এবং স্ট্যাটাস

6. মেয়েরা হাজার ত্যাগ স্বীকার করার পরেও, দিনশেষে তাদেরকে-ই দোষী করা হয়!

7. মেয়েদের মিথ্যা হাসির কারণ যদি কোন পুরুষ জানতো..!! তাহলে কোন মেয়েকে কষ্ট দেওয়ার আগে পুরুষের বুক কেঁপে উঠতো।

8. সব থেকে বড় পাপ, এই পৃথিবীতে মেয়ে হয়ে জন্মানো!

মেয়েদের-কষ্টের-স্ট্যাটাস

আরও পড়ুন- 60 টি ফেসবুক স্ট্যাটাস ক্যাপশন সেরা উক্তি

9. একজন মেয়ের গোটা জীবনটা কেটে যায়,, মানিয়ে চলতে চলতে!! সেটা শ্বশুর বাড়ি হোক কিংবা বাপের বাড়ি।

10. নারীর অর্ধেক কষ্ট দেয় পরিবার, আর বাকি অর্ধেক দেয় সেই পুরুষ, যাকে সে ভালোবাসে!

11. মেয়েরা সত্যি অনেক বেশি ভালোবাসতে পারে। তার একমাত্র প্রমাণ হলো মা!

12. মেয়েরা সারা জীবন দুটো জিনিস লুকিয়ে রাখে। নিজের ইচ্ছা আর নিজের কষ্ট!

মেয়েদের-কষ্টের-কবিতা

13. পৃথিবীর সবকিছু মিথ্যা হলেও, মেয়েদের অশ্রু কখনো মিথ্যা হয় না! কারণ মেয়েরা খুব কষ্ট না পেলে কখনো তাদের দামি অশ্রু ঝরায় না!

14. মেয়েরা তাকেই বেশি ভালোবাসে, যে তাকে সবচেয়ে বেশি কষ্ট দেয়!

15. মেয়েরা সাধারণত নিজেদের পছন্দের জিনিস কাউকে দিতে চায় না! অথচ দিনশেষে এই মেয়েদেরই সবকিছু ছেড়ে চলে আসতে হয়।

16. বুকে কষ্ট নিয়ে… মুখে হাসি দিয়ে চলতে শুধুমাত্র মেয়েরাই পারে!

17. মেয়েদের কষ্ট বোঝা এতো সোজা নয়! তাদের সেই বাড়িতে জায়গা হয়না, যে বাড়িতে সে জন্মায়।

18. মেয়েরা সামান্য কারণে কাঁদে! আবার সবচেয়ে কঠিন যন্ত্রণা নীরবে সহ্য করে।

19. সবাই বলে মেয়েদের কোনো বাড়ি হয় না…!!! কিন্তু আসল কথা হল, তাদের ছাড়াই কোনো বাড়ি সম্পূর্ণ হয় না।

20. মেয়েরা সত্যিই মিথ্যাবাদী!!! কারণ তারা শত কষ্টের মাঝে থেকেও সে যে কষ্টে আছে তা বুঝতে দেয়না।

21. মেয়ে হয়ে জন্ম নেওয়ার সহজ, কিন্তু মেয়ে হয়ে বেচেঁ থাকা অনেক কষ্টের। হাসতে গেলেও ভাবতে হয়, কাঁদতে গেলেও ভাবতে হয়!

22. মেয়েরা অল্পতেই খুশি হয়! কিন্তু কিছু কিছু মেয়ের ভাগ্যে এই অল্প সুখও জোটে না।

23. মেয়েরা আসলেই অভিনেত্রী!!!!! কারণ তারা নিজের ভালোবাসাকে বলি দিয়ে শুধু পরিবারের কথা ভেবে সুখে থাকার অভিনয় করে।

24. ছেলেরা কষ্ট পেলে যত না কাঁদে, মেয়েরা তার চেয়ে দ্বিগুন কষ্ট লুকিয়ে হাসে!

25. মেয়ে মানুষ কারো ব্যক্তিগত সম্পদ নয়! তবুও এদেরকে একটু ভালোবাসা আর সম্মান দিলে তারা সারাজীবন আপনারই হয়ে রবে।

26. যে নারী’র জীবনে সাংসারিক অশান্তি লেগেই থাকে…!! সে নারী দুনিয়াতেই জাহান্নামের স্বাদ অনুভব করে।

27. মেয়েদের জীবনটা হল…. অনেকটা মোমবাতির মতো! তারা অন্যকে আলো দিতে গিয়ে নিজে জ্বলে পুড়ে শেষ হয়ে যায়… তবুও সেই দহনের ব্যথা কাউকে বুঝতে দেয় না।

28. এক বোতল বিষ খেয়ে হয়তো মারা যাওয়া যায়! কিন্তু বেচেঁ থাকতে হলে হাজার হাজার বিষ হজম করতে হয়। হ্যাঁ এটাই মেয়েদের জীবন!

29. মেয়েদের মন খুব নরম। সেই নরম মনে কখনো কষ্ট দিও না। পারলে একটু ভালোবাসা দিও। দেখবে সে সারা দুনিয়ার সাথে লড়াই করবে, শুধু তোমারি জন্য!

30. সব মেয়েরা টাকা খোঁজে না। কিছু কিছু মেয়ে একটা সত্যিকারের মনের মানুষ খোঁজে!

31. ছেলেরা একটু কষ্ট পেলেই মেয়েদের ঘৃণা করে! কিন্তু মেয়েরা হাজার কষ্ট পেলেও ছেলেদেরকে ঘৃণা করতে পারে না! আর এটাই হল মেয়েদের ভালোবাসা!

32. একজন মেয়েকে নিজের গার্লফ্রেন্ড তখনই বানাও, যখন তাকে স্ত্রীর মর্যাদা দেওয়ার সাহস তোমার থাকে!

33. মেয়েরা জীবনে দুটি জিনিস চায়! একটি হলো সম্মান আর অন্যটি হলো মনের মতো একজন জীবন সঙ্গী!

34. আমি মনে করি…. করো কাছে মূল্যহীন হবার থেকে তার কাছ থেকে নিজেকে সরিয়ে নেওয়াটাই শ্রেয়!

35. হয়তো একটু দেরিতে বুঝেছি, তবে ভালোভাবে বুঝে গেছি, পৃথিবীতে প্রয়োজন ছাড়া কেউ কারো সাথে কথা বলে না।

মেয়েদের কষ্টের স্ট্যাটাস গুলি কেমন লাগলো তা কমেন্ট করে আমাদের জানাবেন এবং ভালো লাগলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *